15th Aug 2019: আসন্ন অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন ,

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন এ বিএসএনএল এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কে পুনরায় বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করুন 

 

20th Mar 2019: বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস পালন করুন,

আগামী ২২ মার্চ ২০১৯  বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস বিএসএনএল এর প্রতিটি অফিস দফতরে ব্যাপক ঊদ্দীপনার সাথে পালন করুন। 

 

Com Prabir Kumar Dutta
( President )

Com. Sisir Kumar Roy
( Secretary )

Com. Debasis Dey
( Treasurer )

 
 
bsnleuctc@yahoo.co.in
 
BSNL Employees Union Calcutta Telephones Circle
 
Site Updated On : 22nd Feb 2020
 
[22nd Feb 2020]

প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

 

অল ইউনিয়নস অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েশনস অফ বিএসএনএল (এইউএবি) এর ডাকে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশ জুড়ে অনশন ধর্মঘট পালন করা হবে। কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট এর অনুমোদিত বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন প্রকল্পের অবিলম্বে প্রতিপালন এর সঙ্গে বিএসএনএল এর কর্মচারীদের বেতন প্রদান সহ অন্যান্য দাবি দাওয়ার নিষ্পত্তি করতে এই অনশন ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।

গত ২৩ অক্টোবর, ২০১৯ কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট বিএসএনএল ও এমটিএনএল এর আর্থিক অবস্থা পুনরুদ্ধার এর জন্য ৬৯০০০ কোটি টাকার প্রকল্প ঘোষণা করে। এই প্রকল্পের মধ্যে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান, লং টার্ম বন্ড এর মাধ্যমে ১৫০০০ (বিএসএনএল এর জন্য ৮৫০০ এবং এমটিএনএল এর জন্য ৬৫০০) কোটি টাকা এর ফান্ড গড়ে তোলার জন্য সভেরেইন গ্যারান্টি প্রদান, সম্পদ কে অর্থে রূপান্তর ও ভিআরএস এর প্রয়োগ ছিল।

এতগুলির মধ্যে কেবলমাত্র স্বেচ্ছাবসর প্রকল্প রূপায়িত হয়েছে, যার মধ্যে দিয়ে ৭৮৫৬৯ জন বিএসএনএল কর্মচারীকে বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা হয়েছে। এটি অত্যন্ত দুঃখের বিষয় প্রায় চার মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও বিএসএনএল কে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করা হল না। একইভাবে কেন্দ্রীয় সরকার সভেরেইন গ্যারান্টি প্রদান না করায় বিএসএনএল লং টার্ম বন্ড এর মাধ্যমে ৮৫০০ কোটি টাকার ফান্ড গড়ে তুলতে পারে নি। বিএসএনএল এর সম্পদকে অর্থে পরিণত করার প্রক্রিয়াও শামুকের গতিতে চলছে। মাননীয় সুপ্রিম কোর্টের এজিআর নির্ণয়ের বিষয়ে রায় টেলিকম ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করেছে, যার ফলে ব্যাঙ্কগুলি বিএসএনএল কে প্রয়োজনীয় ঋণ দিতে চাইছে না।

বিএসএনএল কে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করতে বিলম্ব এবং প্রয়োজনীয় ফান্ড এর অপ্রতুলতা থেকে বোঝা যাচ্ছে যে বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা ২০২০ সালের শেষের আগে শুরু হবে না। এই বিলম্ব বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন প্রকল্প অনুমোদন এর কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট এর উদ্যোগের বিরোধী। বিএসএনএল এর ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল এর সমস্যার কথা জানিয়ে মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। যদিও কিছুতেই কোন সমাধান হয় নি।

উপরোক্ত অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে, বিএসএনএল এর পক্ষে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা সম্ভব হয় নি এবং এর ফলে প্রবল আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। কর্মচারীরা নির্দিষ্ট দিনে বেতন পাচ্ছেন না এবং ঠিকা কর্মচারীরা বিগত ১০ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। কর্মচারীদের বেতন থেকে কেটে নেওয়া জিপিএফ, ব্যাঙ্ক লোন এর ইএমআই, এলআইসি এর প্রিমিয়াম, সোসাইটির টাকা প্রভৃতি বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এখনও সংশ্লিষ্ট সংস্থায় জমা দেয় নি। এর ফলে কর্মচারীরা জিপিএফ ও সোসাইটির কাছ থেকে ঋণ পাচ্ছেন না।

এই পরিস্থিতিতে, এইউএবি গত ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশ জুড়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে বিক্ষোভ সমাবেশ সংগঠিত করেছিল । এর সঙ্গে ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশে অনশন ধর্মঘট কর্পোরেট অফিস, সার্কেল ও জেলা স্তরে সংগঠিত হবে, টেলিযোগাযোগ মন্ত্রক ও বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এর উপরোক্ত বিষয়গুলিতে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে।

      কম চন্দেশ্বর সিং                           কম পি অভিমন্যু

  সভাপতি, এইউএবি                     আহ্বায়ক, এইউএবি

 
[17th Feb 2020]

বিএসএনএল কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত 

 

১৭ ফেব্রুয়ারী,  ২০২০ কোঅর্ডিনেশন কমিটির কর্মকর্তাদের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভা লক্ষ্য করেছে যে নিয়মিত ও অনিয়মিত কর্মচারীদের বেতন না হওয়া, সরকারি প্রতিশ্রুতি মত BSSNL পরিষেবার উন্নতির জন্য 4G স্পেক্ট্রামের ব্যবস্থা করতে বিলম্বের পথ নেওয়া অথচ, কোম্পানির জমি জায়গা বিক্রির জন্য দ্রুত উদোগ নেওয়া, ৭৮৫৯৬ জন কর্মচারীরকে অবসরের পথে যেতে বাধ্য করা আবার, হাজারো অনিয়মিত কর্মীদের ছাঁটাইয়ের নির্দেশ দিয়ে পরিষেবা ক্ষতিগ্রস্ত করা হচ্ছে। VRS'র পাওনা অথৈ জলে। BSNLকে রুগ্ন করার ব্যবস্থা করায় কর্পোরেটরা খুশি। সরকারও খুশি। সেই খুশিতে ভোডাফোন ইত্যাদি কর্পোরেট কোম্পানীগুলিকে লক্ষ কোটী টাকার ছাড়ও দেয় feel good সরকার। দেশের জনসাধারণের জন্য টেলিকলের দাম লাগাম ছাড়া করার সুযোগে কর্পোরেট মুনাফার ভান্ডার স্ফীত হবে। এ অবস্থা বিবেচনা করে কোঅর্ডিনেশন কমিটি প্রতিবাদ জানাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বেতন বকেয়া রাখা, কন্ট্রাক্ট কর্মীদের ছাঁটাই, সম্পত্তি বিক্রি - কোনো কিছুই কর্মচারী সংগঠনের সংগে আলোচনা ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে  ও ঐ কর্মসূচি  রূপায়নের প্রতিবাদে সংগঠনের পক্ষ থেকে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ২৪ ফেব্রুয়ারিতে সারাদিন অনশন ধর্মঘট সি জি এম দপ্তরে। ২৭ ও ২৮ ফেব্রুয়ারিতে সি জি এম দপ্তরে ৪৮ ঘন্টার অনশন সহ টিফিন টাইমে জমায়েত ও বিক্ষোভ। ৩ ফেব্রুয়ারিতে দিল্লিতে মার্চ টু সি এম ডি অফিস CCWF এর কর্মসূচি সফল করার আবেদন জানাচ্ছি। সকল জেলায় এই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবার আহবান জানান হচ্ছে। ১২.০৩.২০২০ তারিখে AIBDPA এর ডাকে পার্লামেন্ট অভিযান সফল করার আহবান জানাচ্ছি।

 

ওম প্রকাশ সিং

সাধারণ সম্পাদক

বি এস এন এল সি সি

 
[14th Feb 2020]

সর্বভারতীয় বিএসএনএল ওয়ার্কিং ওমেন কো-অর্ডিনেশন কমিটির সার্কুলার

 

নং বিএসএনএল ডব্লুডব্লুসিসি /২০২০/৩ তারিখ ১৪.০২.২০২০

প্রতি,

সমস্ত কমিটি সদস্য,

সাথী,

পূর্বেই জানানো হয়েছে যে এআইবিডব্লুডব্লুসিসি এর একটি সভা আগামী ৫ মার্চ, ২০২০ ভদোদরা, গুজরাত সার্কেল এ অনুষ্ঠিত হবে। সভার স্থান,

হোটেল তুলসী, ভদোদরা

রোসারি স্কুলের বিপরীত দিকে,

প্রতাপগঞ্জ, ভদোদরা - ৩৯০০০২

আলোচ্য বিষয় :

১) স্বাগত ভাষন

২) সাধারণ সম্পাদক এর ভাষণ

৩) আহ্বায়কের কার্যবিবরণী পেশ

৪) বিগত সভার সিদ্ধান্ত সমূহের পর্যালোচনা

৫) সংগঠন কে আরও শক্তিশালী করা

৬) বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন ও ৪জি পরিষেবা চালু করা

৭) বিএসএনএলইইউ এর প্রতিষ্ঠা দিবস উদযাপন

৮) মহিলা কর্মচারীদের বিভিন্ন সমস্যা সমূহ

৯) সভাপতির অনুমোদন অনুযায়ী অন্য যে কোন বিষয়

সহযোদ্ধার অভিনন্দন সহ,

পি ইন্দিরা, আহ্বায়িকা 

 
[14th Feb 2020]

সিজিএম কলকাতা টেলিফোন্স সার্কেল এর সঙ্গে মিটিং এর আলোচ্য সূচি

 

 

গত ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ সিজিএম কলকাতা টেলিফোন্স সার্কেল এর সঙ্গে বিএসএনএলইইউ কলকাতা টেলিফোন্স সার্কেল এর নেতৃত্বের একটি মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় কলকাতা টেলিফোন্স কর্তৃপক্ষের পক্ষে ড. বিশ্বজিৎ পাল, সিজিএম, শ্রী এ এন ঠাকুর, সিনিয়র জিএম (এইচ আর এন্ড অ্যাডমিন), শ্রী এল কে বৈদ্য, ডিজিএম (এইচ আর এন্ড অ্যাডমিন), শেখ ভাজিরুদ্দীন, এজিএম(স্টাফ ১)/হেড কোয়ার্টার উপস্থিত ছিলেন। এই সভায় কম শিশির কুমার রায়, সার্কেল সম্পাদক, কম প্রবীর দত্ত, সার্কেল সভাপতি, কম দেবাশিস দে, কোষাধক্ষ, কম বিশ্বজিৎ শীল, সহকারী সার্কেল সম্পাদক, কম শর্মিলা দত্ত, সহকারী সভাপতি, কম রাম সুন্দর বাসু, সহকারী সার্কেল সম্পাদক, কম সুব্রত ঘোষ, সহকারী সার্কেল সম্পাদক, কম তপন গাঙ্গুলী, সহকারী সার্কেল সম্পাদক ও কম সুলগ্না বাসু, কার্যকরী সম্পাদক বিএসএনএলইইউ এর পক্ষে উপস্থিত ছিলেন।

সভায় আলোচিত ও গৃহীত সিদ্ধান্ত সমূহ নিম্নে বিস্তৃত ভাবে দেওয়া হল,

১) ভিআরএস পরবর্তী পরিস্থিতিতে নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের উপযুক্ত ভাবে ব্যবহার

সিজিএম কলকাতা টেলিফোন্স নির্দিষ্ট ভাবে বলেন কর্মচারীদের অভিজ্ঞতা ও প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী তাদের স্থানান্তর করা হচ্ছে।

২) নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের ভিআরএস পূর্ববর্তী স্থানান্তর

কয়েক জন নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীকে কাজের প্রয়োজনে অন্য বিভাগে স্থানান্তর করা হয়। ইউনিয়ন এর পক্ষ থেকে জানানো হয় এদের মধ্যে কেউ কেউ ভিআরএস নিয়েছেন। এই সমস্ত কর্মচারীদের অবসরকালীন সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন করতে সমস্যা হতে পারে।

বিস্তারিত আলোচনার পর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে ঐ সমস্ত কর্মচারী নতুন জায়গায় যোগ দিলেও তাদের অবসরকালীন কাজকর্ম পুরনো বিভাগ থেকেই সম্পন্ন হবে।

৩) ভিআরএস পরবর্তী পরিস্থিতিতে জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের ব্যবহার

এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর কর্তৃপক্ষ বলেন যে বিএসএনএল কর্পোরেট অফিস আউট সোর্সিং এর যে নির্দেশিকা জারি করেছে সেই অনুযায়ী কাজ করা হবে। ইউনিয়ন এর পক্ষ থেকে এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ করা হয় এবং সমস্ত জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের কাজে যুক্ত করার পর অবশিষ্ট কাজ আউট সোর্স করা যেতে পারে বলে দাবি করা হয়।

 
[14th Feb 2020]

ভিআরএস নেওয়া কর্মচারীদের প্রভিশনাল পেনশন চালু হবে

 

যেহেতু ভিআরএস ২০১৯ এর ফলে ব্যাপক সংখ্যায় কর্মচারী বিএসএনএল ও এমটিএনএল থেকে অবসর গ্রহণ করেন এবং তাদের অধিকাংশের পেনশন সংক্রান্ত কাগজপত্র এখনও সিসিএ অফিসে জমা পড়ে নি। ফলে তাদের পিপিও বের হতে দেরী হবে সেই জন্য ডিওটি বিশেষ ক্ষমতাবলে সমস্ত ভিআরএস নেওয়া কর্মচারীদের প্রভিশনাল পেনশন আগামী ১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ থেকে চালু করতে নির্দেশ দিয়েছেন। এই প্রভিশনাল পেনশন কর্মচারীর শেষ মূল বেতনের অর্ধেক ও তার সঙ্গে প্রযোজ্য ডিয়ারনেস রিলিফ। আগামী ৩১ মার্চ, ২০২০ এর মধ্যে অবশ্যই সমস্ত ভিআরএস নেওয়া কর্মচারীদের পেনশন অর্ডার বের করতে হবে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ডিওটি থেকে এই বিষয়ে নির্দেশিকা জারি হয়েছে।

 
[14th Feb 2020]

বিধাননগর জেলার বিশেষ সাধারণ সভা

 

 

আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, শনিবার বিধাননগর জেলার বিশেষ সাধারণ সভা আয়োজিত হয় বিধাননগর টেলিফোন এক্সচেঞ্জে । এই সভায় কম জয়ন্ত কুমার ঘোষ, জেলা সভাপতি সভাপতিত্ব করেন । কম কেশব রায়, জেলা সম্পাদক গত ৩১ জানুয়ারি ভিআরএস নেওয়ায় সম্পাদক পদ থেকে ইস্তফা দেন। বিধাননগর জেলা কমিটি এই ইস্তফা সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহণ করেন। তারপর সভায় সহকারী জেলা সম্পাদক কম সুব্রত পাল কে আগামী জেলা সম্মেলন পর্যন্ত কার্যকরী জেলা সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত করে। এই সভায় কম শিশির রায়, সার্কেল সম্পাদক ও কম দেবাশিস দে, কোষাধক্ষ সার্কেল এর পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন। এই নির্বাচন এর বিষয়টি বিধাননগর জেলা কর্তৃপক্ষকে সাংগঠনিক কারণে জানানো হবে।

 
[14th Feb 2020]

कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स की समस्याओं के निराकरण की मांग करते हुए 03.03.2020 को "मार्च टू कॉर्पोरेट ऑफिस"....

 

विगत 10 माह से कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स के वेजेस का भुगतान नही होने से उन्हें अत्यंत परेशानियों का सामना करना पड़ रहा है। इस संबंध में प्रबंधन से कई बार चर्चा की जा चुकी है। किंतु, प्रबन्धन के दृष्टिकोण में, कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स को वेजेस का भुगतान उनके लिए अंतिम प्राथमिकता है। इसके अलावा, कॉर्पोरेट ऑफिस द्वारा कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स की बड़ी संख्या में छंटनी हेतु पत्र भी जारी किया गया है। यह बताना जरूरी नही है कि VRS लागू होने के मद्दे नजर स्टाफ की बहुत ज्यादा कमी हो गई है और ऐसे में अनुभवी कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स BSNL की सेवाओं के रखरखाव हेतु बेहद उपयोगी साबित होंगे। किन्तु, कॉर्पोरेट ऑफिस द्वारा BSNL के कार्य करवाने हेतु वर्तमान में जारी " लेबर कॉन्ट्रैक्ट सिस्टम" के स्थान पर "जॉब कॉन्ट्रैक्ट सिस्टम" हेतु पत्र जारी किया गया है। प्रबंधन के इस निर्णय ने BSNL में वर्तमान में कार्यरत कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स का भविष्य खतरे में डाल दिया है। उपर्युक्त परिप्रेक्ष्य में, BSNLEU और BSNL केज्युअल कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स फेडरेशन (BSNL CCWF), दोनों ने ही उपर्युक्त मुद्दों पर BSNL मैनेजमेंट से अनुकूल कार्यवाही करने की मांग करते हुए 03.03.2020 को नई दिल्ली में रैली आयोजित करने का निर्णय लिया है। कल दिनांक 11.02.2020 को सम्पन्न BSNLEU के ऑल इंडिया सेन्टर की मीटिंग में यह निर्णय लिया गया है कि NTR और कॉर्पोरेट ऑफिस सर्कल्स के अलावा समीपस्थ सर्कल्स यूपी(वेस्ट), हरियाणा, राजस्थान, पंजाब, हिमाचल प्रदेश, उत्तराखंड और यूपी(ईस्ट) से अधिक से अधिक संख्या में BSNL कर्मचारियों को इस रैली हेतु संगठित (mobilise) किया जाए। CHQ द्वारा उपरोक्त सर्किल सेक्रेटरीज को रैली के लिए अधिक से अधिक कॉमरेड्स को संगठित (mobilise) करने का अनुरोध करते हुए पत्र लिखा गया है।

 
You are Visitor Number Hit Counter
Hit Counter
[CHQ] [AP] [Kerala] [Karnataka] [Tamil Nadu] [Calcutta] [West Bengal] [Punjab] [Maharashtra] [Orissa] [MP] [Gujrat] [SNEA] [AIBSNLEA] [TEPU]
[Intranet / BSNL] [DOT] [DPE] [TRAI] [PIB] [CITU ] / AIBDPA