15th Aug 2019: আসন্ন অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন ,

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন এ বিএসএনএল এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কে পুনরায় বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করুন 

 

20th Mar 2019: বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস পালন করুন,

আগামী ২২ মার্চ ২০১৯  বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস বিএসএনএল এর প্রতিটি অফিস দফতরে ব্যাপক ঊদ্দীপনার সাথে পালন করুন। 

 

Com Prabir Kumar Dutta
( President )

Com. Sisir Kumar Roy
( Secretary )

Com. Debasis Dey
( Treasurer )

 
 
bsnleuctc@yahoo.co.in
 
BSNL Employees Union Calcutta Telephones Circle
 
Site Updated On : 18th Jul 2021
 
[7th Nov 2020]
 

 
[5th Nov 2020]

বিধাননগর টেলিফোন এক্সচেঞ্জে  সাধারণ ধর্মঘটের সমর্থনে কনভেনশন

 

আজ ৫ নভেম্বর বিধাননগর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ এ ২৬ নভেম্বর সাধারণ ধর্মঘটের প্রচার শুরু হয়েছে জেলা কনভেনশনের মধ্য দিয়ে। কনভেনশন পরিচালনা করেন কমরেড জয়ন্ত ঘোষ। কমরেড সুব্রত পাল কনভেনশনের উদ্যেশ্য ব্যখ্যা করে ধর্মঘটের প্রচার শুরুর কথা বলেন। স্ট্রাইক কমিটি গঠন করা হয়েছে বিভাগীয়, পেনশনার এবং অনিয়মিত সংগঠকদের নিয়ে। কনভেনশনের প্রধান বক্তা শিশির রায় বি এস এন এল এর দশ দফা এবং সাধারণ মানুষের সাত দফা দাবি আলোচনা করে ধর্মঘটের সমর্থনে বক্তব্য রাখেন। বি এস এন এল শিল্প রক্ষ্যা করে কর্মচারীদের জন্য দাবী আদায় করার কথা বলেন।

 
[4th Nov 2020]

২৬ নভেম্বর সাধারণ ধর্মঘটের সমর্থনে কনভেনশন

 

আজ ৪ঠা নভেম্বর, ২০২০ বিশ্বনাথ দেচৌধুরী সভাঘরে ২৬ নভেম্বর সাধারণ ধর্মঘটের সমর্থনে সার্কেল কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয় । এই কনভেনশন পরিচালনা করেন বি এস এন এল ই ইউ এর সার্কেল সভাপতি কমরেড প্রবীর কুমার দত্ত। কমরেড শিশির কুমার রায়, সার্কেল সম্পাদক ধর্মঘটের দাবিসমূহ ব্যাখ্যা করেন এবং তিনি প্রচার কর্মসূচি কী কী ভাবে কোথায় কোথায় হবে এই মতামত জানতে চান উপস্থিত সকল সংগঠকদের কাছে। এর পর কমরেড সঞ্জীব ব্যানার্জি, সার্কেল সম্পাদক, এ আই বি ডি পি এ, ধর্মঘটের সমর্থনে বক্তব্য রাখেন। ঠিকা মজদুর ইউনিয়নের পক্ষে বক্তব্য রাখেন কমরেড তাপস ব্যানার্জি। এছাড়া কমরেড দেবব্রত বসু, কমরেড মনীষা বিশ্বাস এবং আরও অনেকে ধর্মঘট সফল করতে তাদের মূল্যবান বক্তব্য রাখেন। আলোচনার পর কনভেনশন থেকে গঠিত হোয়েছে স্ট্রাইক কমিটি নিয়মিত, অনিয়মিত ও পেনশনার সংগঠকদের নিয়ে। সংগঠনের প্রতিনিধিরা ধর্মঘটের দাবিগুলি নিয়ে আলোচনা করেন। সভার মুল বক্তা শিশির রায় দেশের ও দশের সাত দফা দাবির সাথে বি এস এন এল শিল্প ও কর্মচারীদের দশ দফা দাবিতে ধর্মঘট সফল করার আহ্বান জানান। সভাপতি কমরেড প্রবীর কুমার দত্ত সভার প্রত্যেক সদস্যকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভা শেষ করেন।

 
[4th Nov 2020]

डॉ के हेमलता, अध्यक्ष, CITU फेसबुक पर BSNL कर्मियों को  लाइव संबोधित करेंगी....

 

BSNLEU द्वारा 26 नवंबर, 2020 की आम हड़ताल के संबंध में कॉम तपन सेन, महासचिव, CITU का फेसबुक पर लाइव उद्बोधन कार्यक्रम आयोजित किया जा चुका है। वह उद्बोधन अंग्रेजी में था।BSNLEU के ऑल इंडिया सेन्टर ने अब हिंदी में फेसबुक लाइव कार्यक्रम आयोजित करने का निर्णय लिया है। तदनुसार, डॉ के हेमलता, अध्यक्ष, CITU फेसबुक पर 17-11-2020 को शाम 6.00 बजे BSNL कर्मियों को हिंदी में संबोधित करेंगी। चूंकि, यह लाइव उद्बोधन हिंदी में होगा, हिंदी भाषी सर्किल के सर्किल और डिस्ट्रिक्ट सेक्रेटरीज से अनुरोध है कि, वें सुनिश्चित करें कि यह कार्यक्रम अधिक से अधिक साथी देखें। 

 
[2nd Nov 2020]

BSNL को खत्म करने का षड्यंत्र गहरा रहा है..

 

BSNL के 4G टेंडर के निरस्तीकरण के पश्चात सरकार द्वारा BSNL के 4G की शुरुआत हेतु रोडमैप के लिए सुझाव देने हेतु जो समिति गठित की गई थी,उसके द्वारा, प्राप्त जानकारी अनुसार, अपनी अनुशंसा प्रस्तुत कर दी गई है। उक्त समिति द्वारा दिए गए सुझाव स्पष्ट रूप से  प्रदर्शित करते हैं कि सरकार 4G की शुरुआत में विलंब कर BSNL को एक बीमार कंपनी में परिवर्तित करना चाहती है। 

मीडिया की रिपोर्ट्स के अनुसार, DoT कमिटी ने, सिस्टम इंटेग्रेटर द्वारा BSNL का 4G नेटवर्क निर्मित करने व संचालित (manage) करने की अनुशंसा की है। “सिस्टम इंटेग्रेटर” एक भारतीय कंपनी होगी, जिसे विभिन्न वेंडर्स से हार्डवेयर और सॉफ्टवेयर प्राप्त कर उनको असेम्बल करने की जिम्मेदारी दी जाएगी। 
 
यह जानना बेहद जरूरी है कि सभी प्राइवेट टेलीकॉम ऑपरेटर्स द्वारा टर्नकी कॉन्ट्रैक्ट के जरिए सिर्फ एक वेंडर द्वारा अपना नेटवर्क निर्मित किया गया है। “टर्नकी कॉन्ट्रैक्ट” के अनुसार केवल एक ही वेंडर, मैनेज्ड सर्विस एग्रीमेंट के तहत नेटवर्क संचालित करेगा। किन्तु, “सिस्टम इंटेग्रेटर” मॉडल में एक से अधिक वेंडर शामिल रहेंगे, जिससे तकनीकी समस्याएं निर्मित होंगी।

“सिस्टम इंटेग्रेटर मॉडल” को लेकर  ET Telecom अखबार ने अपने 12 अक्टूबर, 2020 के अंक में निम्न समाचार प्रकाशित किया है:-

" BSNL के 4G नेटवर्क के निर्माण हेतु घरेलू वेंडर (home-grown vendors) को प्राथमिकता देते हुए , “सिस्टम इंटेग्रेटर मॉडल” को अपनाने के किसी भी प्रयास के परिणाम स्वरूप, इंडस्ट्री एक्सपर्ट्सऔर एनालिस्ट के अनुसार, कीमतें प्रभावित होंगी और मार्किट में प्रतिस्पर्धा करने में कंपनी (BSNL) की क्षमताएं आहत होंगी। उनका कहना है कि 4G नेटवर्क, जिसमें रेडियो और कोर प्रोडक्ट्स शामिल है, के निर्माण में सिस्टम इंटेग्रेटर (SI) मॉडल और स्थानीय प्लेयर्स की निपुणता अभी तक व्यापक तौर पर साबित नही हुई है। 

इन सभी से यह परिलक्षित हो रहा है कि BSNL को खत्म करने का षड्यंत्र गहराता जा रहा है। इसे रोकने के लिए, सभी यूनियन्स और एसोसिएशंस को एक साथ आना चाहिए।

 
[2nd Nov 2020]

आम हड़ताल में व्यापक रूप से शामिल होवें- कॉम तपन सेन की BSNLEU कर्मियों से अपील.

 

BSNLEU द्वारा 28 अक्टूबर, 2020 को शाम 6.00 बजे, 26 नवंबर, 2020 को होने वाली हड़ताल हेतु कर्मचारियों को संगठित करने के लिए फेसबुक पर लाइव कार्यक्रम आयोजित किया गया। कॉम तपन सेन, महासचिव, सीटू ने संबोधित किया। उन्होंने इस पर प्रकाश डाला कि किस तरह विगत सरकारों के निजी समर्थक और BSNL विरोधी कदम उठाए जाने से BSNL लगातार कमजोर होता जा रहा है। उन्होंने, नरेंद्र मोदी सरकार द्वारा सार्वजनिक उपक्रमों के वृहद रूप से किए जा रहे निजीकरण बाबद विस्तार से समझाया। कॉम तपन सेन ने स्पष्ट किया कि कर्मचारियों द्वारा संघर्षों से हासिल अधिकारों को छीन कर मोदी सरकार उन्हें बड़े कॉर्पोरेट्स का गुलाम बनाने हेतु प्रयासरत है। कॉम तपन सेन ने विभिन्न संघर्षों, उदाहरण के लिए कोयला क्षेत्र के कर्मियों, BPCL और ऑर्डनेन्स फैक्ट्री के कर्मियों और उत्तर प्रदेश के इलेक्ट्रिसिटी कर्मियों के संघर्षों का जिक्र किया जहां सरकार द्वारा निजीकरण कार्यवाही को वापस लेना पड़ा। अंत में, कॉम तपन सेन ने BSNL कर्मियों से, BSNL के हितों की रक्षा के लिए और साथ ही मोदी सरकार के कर्मचारी विरोधी, और पब्लिक सेक्टर विरोधी अभियान को रोकने के लिए 26 नवंबर, 2020 को होने वाली आम हड़ताल में वृहद रूप से शामिल होने की अपील की।   

 
[18th Oct 2020]

ধর্মঘট ও তার প্রচার এর জন্য বিএসএনএলইইউ এর আহ্বান

 

বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন প্রকল্প যা বিপুল ঢক্কানিনাদ এর মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছিল তা প্রায় এক বছর অতিক্রান্ত। ৮০০০০ কর্মচারীকে স্বেচ্ছাবসর এর নামে ছাঁটাই করা হয়েছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও নিয়মিত কর্মচারীরা এখনও পর্যন্ত তাদের বেতন সময় মতো পাচ্ছেন না। দীর্ঘ সময় ধরে নথিভুক্ত হাসপাতালগুলির বিল বকেয়া থাকায় কর্মচারীরা সেখান থেকে পয়সা ছাড়া চিকিৎসার সুবিধা পাচ্ছেন না। ঠিকা কর্মচারীরা বিগত ১৫ মাস ধরে তাদের বেতন পাচ্ছেন না। 

৪জি পরিষেবা প্রদান করার ব্যাপারে বিএসএনএল বেসরকারি কোম্পানি গুলির থেকে ৪ বছর পিছিয়ে আছে। যদিও কেন্দ্রীয় সরকার ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করার ঘোষণা করা সত্ত্বেও বিএসএনএল এখনও ৪জি পরিষেবা প্রদান করতে সক্ষম নয়। কারণ কেন্দ্রীয় সরকার বিএসএনএল কে ৪জি পরিষেবা চালু করতে দিতে ইচ্ছুক নন। বিএসএনএল যখন ৪জি পরিষেবা চালু করার জন্য টেন্ডার আহ্বান করে তখন কেন্দ্রীয় সরকার তা বাতিল করে দেন। যেখানে বেসরকারি কোম্পানিগুলি নোকিয়া, এরিকসন, স্যামসাং প্রভৃতি বিদেশী কোম্পানির থেকে উপযুক্ত যন্ত্রাংশ কেনার মাধ্যমে তাদের পরিষেবা চালু করতে পারে সেখানে বিএসএনএল কে ৪জি যন্ত্রাংশ ভারতীয় কোম্পানির থেকে কিনতে হবে। যদিও একথা সবাই জানে যে ভারতের কোনো কোম্পানি বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ সরবরাহ করতে সক্ষম নন। 

এখন সব থেকে বড় প্রশ্ন, কেন্দ্রীয় সরকার কেন বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ এর টেন্ডার বাতিল করে ছিলেন। এর সহজ উত্তর হলো, কেন্দ্রীয় সরকার চাইছে না যে বিএসএনএল রিলায়েন্স জিও কে কঠিন প্রতিযোগিতার মুখে ফেলে দেয়। ট্রাই এর তথ্য অনুযায়ী, মে ২০২০তে এয়ারটেল ও ভোডাফোন-আইডিয়া প্রত্যেকেই ৪৭ লাখ গ্রাহক হারিয়েছে। সেখানে বিএসএনএল ৪জি পরিষেবা না থাকা সত্ত্বেও ঐ মাসে ২লাখ নতুন গ্রাহক যোগ করেছে। এর থেকে বোঝা যায় যে যদি বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা চালু করতে পারতো তাহলে রিলায়েন্স জিও কে কি কঠিন প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হতো। ঠিক এই কারণে বিএসএনএল কে কেন্দ্রীয় সরকার ৪জি পরিষেবা চালু করতে অনুমতি দিচ্ছে না। 

বিএসএনএল ৪জি পরিষেবা চালু করতে না পারার কারণে তার আর্থিক অবস্থার উন্নতি হবে না। যখন অন্যান্য বেসরকারি কোম্পানি গুলি ৫জি চালু করার জন্য চেষ্টা করছে তখন বিএসএনএল ৪জি পরিষেবা চালু করতে পারে নি। এই পরিস্থিতি যদি চলতে থাকে তবে বিএসএনএল সত্যিই একটি রুগ্ন সংস্থায় পরিণত হবে। অন্যদিকে রিলায়েন্স জিও যবে থেকে পরিষেবা প্রদান শুরু করেছে কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে তাকে সহায়তা করে চলেছে। তাই কর্মচারীদের একথা বিশ্বাস করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে যে রিলায়েন্স জিও এর সুবিধা করে দেওয়ার জন্য বিএসএনএল কে ৪জি পরিষেবা চালু করতে দেওয়া হচ্ছে না। 

বিএসএনএলইইউ ও এইউএবি অসংখ্য বার এই দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুলেছে যে বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা চালু করার পথে সমস্ত বাধা অবিলম্বে কেন্দ্রীয় সরকার কে সরাতে হবে। যেহেতু কর্মচারীদের এই দাবি কেন্দ্রীয় সরকারের বধির কানে প্রবেশ করছে না তাই কঠিন আন্দোলন শুরু করা ছাড়া কর্মচারীদের কাছে অন্য কোন পথ নেই। বিএসএনএলইইউ এর অনলাইন সেন্ট্রাল এক্সিকিউটিভ কমিটির মিটিং গত ১০ ও ১১ সেপ্টেম্বর,২০২০ এ সমস্ত সার্কেল ও জেলাগুলিকে আহ্বান জানান যে আগামী সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে কর্মচারী ও জনগণের মধ্যে আমাদের দাবিগুলো নিয়ে ব্যাপক প্রচার করতে হবে এবং ২৬ নভেম্বর, ২০২০ ধর্মঘট পালন করা হবে। বিএসএনএল এর কর্মচারীদের এখন কর অথবা মর পরিস্থিতি, হয় তাদের আন্দোলন এর মধ্যে দিয়ে বিএসএনএল কে পুনরুজ্জীবিত করতে হবে অথবা বিএসএনএল একটি রুগ্ন সংস্থায় পরিণত হয়ে ক্রমে রিলায়েন্স জিও এর অধিনস্থ সংস্থায় পরিণত হবে। 

দাবি সনদ

১) অবিলম্বে বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা চালু করতে হবে। বেসরকারি কোম্পানিগুলির সঙ্গে যন্ত্রাংশ কেনার ব্যাপারে কোনো পক্ষপাতিত্ব করা চলবে না। 

২) তৃতীয় বেতন চুক্তি সম্পন্ন করতে হবে। 

৩) কাজের আউটসোর্সিং এর নামে ঠিকানা কর্মচারীদের ছাঁটাই করা চলবে না। ছাঁটাই হওয়া কর্মচারীদের অবিলম্বে নিয়োগ করতে হবে। ঠিকা কর্মচারীদের বকেয়া বেতন প্রদান করতে হবে। 

৪) ০১/০১/২০১৭ পেনশন সংশোধন করতে হবে। 

৫) নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের জন্য নতুন পদোন্নতির ব্যবস্থা চালু করতে হবে। 

৬) অবিলম্বে জেটিও, জেএও, জেই ও টিটি পদে উন্নীত করার জন্য এলআইসিই নিতে হবে। 

৭) কোভিড১৯ এর আক্রমণে মৃত কর্মচারীদের ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপুরণের বন্দোবস্ত করতে হবে। নিখরচায় হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। 

৮) নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের জন্য গ্রুপ টার্ম ইনসিওরেন্স এর ব্যবস্থা করতে হবে। 

৯) বিএসএনএল এ নিযুক্ত কর্মচারীদের ৩০ শতাংশ অবসরকালীন সুবিধা প্রদান করতে হবে। 

১০) ক্যাজুয়াল কর্মচারীদের বেতন সংশোধন করতে হবে। 

বিএসএনএল কেন্দ্রীয় সরকারের কর্পোরেট অনুসারী ও বিএসএনএল বিরোধী নীতির কারণে আক্রান্ত

১) বেসরকারি কোম্পানি গুলিকে ১৯৯৫ সালে মোবাইল পরিষেবা প্রদান এর লাইসেন্স প্রদান করা হয়। কিন্তু তৎকালীন নরসিমহা রাও সরকার তৎকালীন কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্থা ডিওটিকে মোবাইল পরিষেবার অনুমতি দেন নি। বিএসএনএল কে মোবাইল পরিষেবা প্রদান করার অনুমতি দেওয়া হয় ২০০২ সালের শেষের দিকে। এই মোবাইল লাইসেন্স পেতে সাত বছর দেরী কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা বিএসএনএল এর বিপুল ক্ষতি করে দেয়। 

২) ১৯৯৯ সালে অটল বিহারী বাজপেয়ী এর নেতৃত্বাধীন সরকার বেসরকারি টেলিকম কোম্পানিগুলির বকেয়া লাইসেন্স ফি মকুব করে দেন যার পরিমাণ ১০০০০ কোটি টাকার উপর। এর মধ্যে দিয়ে ঐ কোম্পানিগুলি আর্থিক সহায়তা পায়। বেসরকারি টেলিকম কোম্পানিগুলির সুরাহার জন্য তৎকালীন সরকার নির্দিষ্ট লাইসেন্স ফি এর পরিবর্তে রাজস্ব আদায়ের অনুপাতে কর আদায় এর প্রক্রিয়া শুরু করেন। এর ফলে বেসরকারি টেলিকম কোম্পানিগুলির সুবিধা হয়ে যায় কম রাজস্ব আদায় দেখিয়ে তুলনামূলক কম লাইসেন্স ফি দিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার কে ঠকানোর। 

৩) রিলায়েন্স ইনফোকম দেশে ফিক্সড লাইন পরিষেবা চালু করার কেবলমাত্র অনুমতি পেয়ে ছিল। কিন্তু সিডিএমএ প্রযুক্তির অপব্যবহার করে সারা দেশে মোবাইল পরিষেবা চালু করে। তৎকালীন কেন্দ্রীয় সরকার রিলায়েন্স ইনফোকম এর সহায়তায় এগিয়ে আসে এবং দেশে ইউনিফায়েড সার্ভিসেস এক্সেস লাইসেন্সিং পদ্ধতি চালু হয়। 

৪) ইউপিএ নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকারের সময়েও একটার পর একটা কারণ দেখিয়ে বিএসএনএল এর যন্ত্রাংশ কেনার টেন্ডার বাতিল করা হয়েছে। মনে রাখতে হবে ২০০৬ থেকে ২০১২ যখন দেশে মোবাইল পরিষেবা বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ করছে তখন বেসরকারি কোম্পানিগুলি এর লাভ গ্রহণ করলেও বিএসএনএল কে পরিষেবা চালু করতে দেওয়া হল না। বিএসএনএল এর রুগ্ন সংস্থায় পরিণত হওয়ার এটি একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারণ। 

৫) ট্রাই ও কম্পিটিশন কমিশন অফ ইন্ডিয়া এর বেঁধে দেওয়া নিয়মের বাইরে গিয়ে রিলায়েন্স জিও কে প্রিডেটরী প্রাইসিং এর সুবিধা দেওয়া হয়েছিল। ডিওটি, ট্রাই ও কেন্দ্রীয় সরকার রিলায়েন্স জিও কে খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিপুল টেলিকম সাম্রাজ্য গঠনে সহায়তা করেছিলেন। রিলায়েন্স জিও এর প্রিডেটরী প্রাইসিং এর বিষয়ে প্রশ্ন তোলায় শ্রী এস কে দীপক, তৎকালীন সেক্রেটারি ডিওটিকে পদ থেকে অপসারিত করা হয়। 

৬) এমনকি মে ২০২০ ট্রাই এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিএসএনএল ২ লাখ নতুন গ্রাহক সংগ্রহ করেছে যেখানে এয়ারটেল ও ভোডাফোন-আইডিয়া প্রত্যেকেই তাদের গ্রাহক সংখ্যা ৪৭ লাখ করে হারিয়েছে। বিএসএনএল এই গ্রাহক অর্জন করেছে ৪জি পরিষেবা চালু না করেই। এই ঘটনা এটাই প্রমাণ করে যে বিএসএনএল এর রিলায়েন্স জিও কে কঠিন প্রতিযোগিতার মুখোমুখি ফেলার ক্ষমতা আছে। সেই জন্যই বিএসএনএল কে ৪জি পরিষেবা চালু না করতে দেবার জন্য এত চক্রান্ত হচ্ছে। 

 
You are Visitor Number Hit Counter
Hit Counter
[CHQ] [AP] [Kerala] [Karnataka] [Tamil Nadu] [Calcutta] [West Bengal] [Punjab] [Maharashtra] [Orissa] [MP] [Gujrat] [SNEA] [AIBSNLEA] [TEPU]
[Intranet / BSNL] [DOT] [DPE] [TRAI] [PIB] [CITU ] / AIBDPA