15th Aug 2019: আসন্ন অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন ,

১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ অষ্টম মেম্বারশীপ ভেরিফিকেশন এ বিএসএনএল এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন কে পুনরায় বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করুন 

 

20th Mar 2019: বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস পালন করুন,

আগামী ২২ মার্চ ২০১৯  বিএসএনএলইইউ এর ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবস বিএসএনএল এর প্রতিটি অফিস দফতরে ব্যাপক ঊদ্দীপনার সাথে পালন করুন। 

 

Com Prabir Kumar Dutta
( President )

Com. Sisir Kumar Roy
( Secretary )

Com. Debasis Dey
( Treasurer )

 
 
bsnleuctc@yahoo.co.in
 
BSNL Employees Union Calcutta Telephones Circle
 
Site Updated On : 6th Apr 2020
 
[1st Apr 2020]

কন্ট্রাক্ট ওয়ার্কার রিলিফ ফান্ড গড়ে তোলার আবেদন 

 

প্রিয় সাথী

আপনারা সবাই জানেন যে বিএসএনএল এর জব কন্ট্রাক্ট লেবাররা বিগত দশ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। এই বিষয়ে বিএসএনএলইইউ এবং বিএসএনএল সিসিডব্লুএফ একত্রে বিএসএনএল কর্তৃপক্ষের উপর বারংবার চাপ সৃষ্টি করেছে যাতে তারা বকেয়া বেতন প্রদান এর প্রয়োজনীয় ফান্ড এর ব্যবস্থা করেন। যদিও এখনও পর্যন্ত তা বাস্তবায়িত করা যায় নি। এই পরিস্থিতিতে, কেন্দ্রীয় সরকার করোনা ভাইরাস এর সংক্রমণ বন্ধ করতে ২১ দিনের জন্য সারা দেশ জুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছে। এই লকডাউন এর ফলে জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের দুর্দশা আরো কয়েক গুণ বৃদ্ধি পাবে। 

অবিলম্বে এই সমস্ত জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের উদ্দেশ্যে মানবিক সহায়তা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়েছে। তাই বিএসএনএলইইউ সিএইচকিউ সার্কেল সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় অফিস বেয়ারারদের সাথে আলোচনা করে জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের সহায়তার জন্য "কন্ট্রাক্ট ওয়ার্কার রিলিফ ফান্ড" গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিএসএনএলইইউ এর সমস্ত সার্কেল, জেলা তথা শাখা সম্পাদকদের অনুরোধ জানানো হচ্ছে এই ফান্ড গড়ে তোলার জন্য সক্রিয় ভূমিকা পালন করার। এই ফান্ড গড়ে তুলতে আমাদের সদস্য ও আধিকারিকদের সঙ্গে শুভানুধ্যায়ী এবং অবসরপ্রাপ্তদের কাছে আবেদন জানানো হচ্ছে।

এই লকডাউন এর পরিস্থিতিতে, প্রত্যেককে টেলিফোনে যোগাযোগ করে এবং তার থেকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতির মধ্যে দিয়ে এই ফান্ড এর জন্য অনুদান সংগ্রহ করতে হবে। সিএইচকিউ সমস্ত সার্কেল সম্পাদকদের অনুরোধ জানাচ্ছে কেন্দ্রীয় অফিস বেয়ারারদের, জেলা সম্পাদক ও অন্যান্যদের সহায়তায় এই ফান্ড গড়ে তুলতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে। সিএইচকিউ সমস্ত সদস্যদের যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ও দ্রুত এই ফান্ড গড়ে তোলার জন্য সক্রিয় উদ্যোগ নিতে অনুরোধ জানাচ্ছে। সিএইচকিউ এর পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা পরে জানান হবে।

পি অভিমন্যু, সাধারণ সম্পাদক, বিএসএনএলইইউ

 
[30th Mar 2020]

Letter to the Director (HR)

 

To

The Director(HR) 

BSNL. 

 

 

Respected sir,

Good afternoon. I'm in receipt of the WhatsApp message forwarded by you yesterday. In this regard, the following is the overwhelming view of our circle secretaries and office bearers :-

 

The spirit of the appeal made by the Hon'ble Prime Minister is that, we should extend humanitarian help to the poor and the needy, at this hour of crisis. As per this call, the contract workers of BSNL are among the most deserving and the needy, to get humanitarian help. They have not been paid wages for the past ten months or more. You are aware that many contract workers have already committed suicide due to non-receipt of wages. 

 

Even a few days back, BSNLEU has written to the CMD BSNL, quoting the recent instructions of the Labour and Finance Ministries, and has requested for the early payment of the wage arrears of the contract workers. Hence, to fulfil the true spirit of the call of the Hon'ble Prime Minister in BSNL, the Management should immediately take steps to clear the payment of the wage arrears of the contract workers.

 

The employees of BSNL are already suffocating due to non-receipt of monthly salary and non-receipt of GPF and society loans. The lower level employees are the worst sufferers. The salary for the month of March, 2020, is still not paid to the employees. 

 

Many state governments, like Tamil Nadu and Kerala, as well as many other local organisations, are also collecting funds, to help the poor and the needy. These calls are also being responded to by our employees.

 

Under the above mentioned circumstances, I wish to inform that, BSNLEU is against deduction of any contribution from the salary of the employees.

Regards.

-P.Abhimanyu,

General Secretary,

BSNLEU.

 
[27th Mar 2020]
কোভিড১৯ পরবর্তী পরিস্থিতি
  আজ ২৭ মার্চ, ২০২০ শ্রী প্রদীপ গুপ্ত, পিজিএম, শ্রীমতী রূপা পাল চৌধুরী, পিজিএম (ফিনান্স) ও ড. বিশ্বজিৎ পাল, সিজিএম, কলকাতা টেলিফোন্স এর সঙ্গে টেলিফোনে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি আলোচনা হয় :- ১) ঠিকা কর্মচারীদের বকেয়া এপ্রিল, ২০১৯ ও মে, ২০১৯ মাসের বেতন প্রদান বিষয়ে কলকাতা টেলিফোন্স কর্তৃপক্ষ কন্ট্রাক্টরদের সাথে কথা বলে এপ্রিল, ২০১৯ মাসের বকেয়া বেতন প্রদান এর বন্দোবস্ত করবেন এবং কর্পোরেট অফিসে মে, ২০১৯ মাসের বকেয়া বেতন প্রদান এর বিষয়টি উত্থাপিত করবেন বলে ড. বিশ্বজিৎ পাল, সিজিএম জানান । ২) বর্তমান জব কন্ট্রাক্ট লেবার পদ্ধতি ৩১ মার্চ, ২০২০ এর পর বাড়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় ওয়ার্ক অর্ডার বিষয়ে কর্পোরেট অফিস এর আউট সোর্সিং এর পদ্ধতি সম্পূর্ণ ভাবে চালু না হওয়া পর্যন্ত বর্তমান জব কন্ট্রাক্ট পদ্ধতি চালু থাকবে বলে সিজিএম কলকাতা টেলিফোন্স জানান । ৩) টেলিফোন বিল ও পোস্ট পেড মোবাইল বিলের টাকা জমা দেওয়ার সময় সীমা কোভিড১৯ এর সংক্রমণের জন্য বৃদ্ধি করা হবে কি টেলিফোন ও পোস্ট পেড মোবাইল ফোন এর গ্রাহকরা যদি অনলাইনে টাকা জমা না দিতে পারেন তাহলে তাদের বিল জমা দেওয়ার সময় সীমা বৃদ্ধি করা হবে বলে পিজিএম (ফিনান্স) জানান । ৪) যে সমস্ত কর্মচারী আগামী ৩১ মার্চ, ২০২০ চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করবেন তাদের শেষ কাজের দিনে উপস্থিত থাকার বিষয়ে সিজিএম বলেন যে সমস্ত কর্মচারী ৩১ মার্চ, ২০২০ অবসর গ্রহণ করবেন তারা তাদের কন্ট্রোলিং অফিসারকে ইমেইল এর মাধ্যমে জয়েনিং ও সার্ভিস থেকে রিলিজ করার আবেদন করবেন।
 
[4th Mar 2020]

यूनियन और यूनियन के महासचिव की छवि खराब करने वाले पांच व्यक्तियों के खिलाफ BSNLEU द्वारा कानूनी कार्यवाही की पहल...

 

सरकार द्वारा BSNL विरोधी और निजी समर्थक नीतियों के निरंतर रूप से अपनाए जाने से BSNL गहरे संकट में धकेल दिया गया है। BSNL की यूनियन्स और एसोसिएशन्स, BSNL को बचाने और साथ ही उसके कर्मचारियों के हितों की रक्षा के लिए लगातार संघर्ष कर रहे हैं। इस दिशा में, कई हड़ताल और अन्य स्वरूपों के आंदोलन, यूनियन्स और एसोसिएशन्स द्वारा आयोजित किए गए हैं। किन्तु, BSNL की वित्तीय स्थिति बेहद गंभीर हो चुकी है और कर्मचारियों को समय पर वेतन भी प्राप्त नही हो रहा है। कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स को विगत 10 माह से वेजेस का भुगतान नही हुआ है। इस निराशापूर्ण स्थिति का लाभ उठाते हुए, कुछ शरारती तत्व बार बार ट्रेड यूनियन्स और उसके लीडर्स की छवि खराब का प्रयास कर रहे हैं। ट्रेड यूनियन्स और उसके लीडर्स ऐसे तत्वों के लिए एक आसान लक्ष्य हैं। अभी हाल ही में, BSNLEU और उसके महासचिव कॉम पी. अभिमन्यु की छवि खराब करने के लिए 2 ऑडियो क्लिप्स सोशल मीडिया में वायरल किए जा चुके हैं। BSNLEU विरोधी ताकतों ने इन ऑडियो क्लिप्स को कर्मचारियों के बीच व्यापक रूप से प्रसारित किया है। BSNLEU के ऑल इंडिया सेन्टर ने इस मुद्दे पर चर्चा की और निर्णय लिया कि इन ऑडियो क्लिप्स बनाने वाले और कर्मचारियों के बीच व्यापक रूप से अपमानजनक टिप्पणियों के साथ ऑडियो क्लिप्स प्रसारित करने वाले अन्य चार व्यक्तियों के खिलाफ अवमानना का प्रकरण दर्ज किया जाए। तदनुसार, इन 5 व्यक्तियों के खिलाफ दिल्ली के तीस हजारी कोर्ट में अवमानना का प्रकरण दर्ज करने हेतु कार्यवाही की गई है। इन सभी पांचों व्यक्तियों को नोटिस जारी कर दिए गए हैं। इनसे जवाब प्राप्त होने के पश्चात प्रकरण दर्ज (file) कर दिया जाएगा।

 
[24th Feb 2020]

CMD BSNL और AUAB के बीच आज सम्पन्न वार्ता का विवरण...

 

AUAB के लीडर्स को आज CMD BSNL द्वारा चर्चाओं के लिए आमंत्रित किया गया। कॉम पी अभिमन्यु, GS, BSNLEU और कन्वेनर, कॉम चंदेश्वर सिंह, GS, NFTE और चेयरमैन, कॉम के सेबेस्टिन, GS, SNEA, कॉम सिवकुमार, GS, AIBSNLEA, कॉम बी सी पाठक, कोषाध्यक्ष, FNTO, कॉम सुरेश कुमार, GS, BSNL MS और कॉम एच पी सिंह, GS, BSNLOA, चर्चाओं में शामिल हुए। श्री अरविंद वडनेरकर, डायरेक्टर (HR) और श्री ए एम गुप्ता, GM (SR) भी उपस्थित थे। श्री पी के पुरवार, CMD BSNL ने प्रबंधन द्वारा VRS पश्चात सेवाओं के रखरखाव हेतु उठाए जा रहे कदम और संपत्ति के मुद्रीकरण (monetisation) हेतु किए जा रहे प्रयासों बाबद विस्तार से बताया। BSNL की 4G सेवाओं की शुरुआत की निश्चित समयावधि वें नही बात सके। उन्होंने आश्वासित किया कि कार्यरत कर्मियों की समस्याओं के निदान हेतु हर संभव प्रयास किए जा रहे हैं। AUAB के लीडर्स ने 4G सेवाओं की शुरुआत में हो रही देरी पर गंभीर चिंता व्यक्त की। उन्होंने CMD BSNL से वेतन और कॉन्ट्रैक्ट वर्कर्स के वेजेस के त्वरित भुगतान और कर्मचारियों के वेतन से काटी जा चुकी कटौतियां संबंधित संस्थाओं को प्रेषित करने का अनुरोध किया। उन्होंने AUAB और मैनेजमेंट के मध्य सेवाओं में सुधार के मुद्दे पर तालमेल (liasion) के अभाव की ओर भी इशारा किया। अंत मे, AUAB के लीडर्स ने CMD BSNL से यह भी कहा कि मैनेजमेंट को धरना, भूख हड़ताल आदि जैसे शांतिपूर्ण आंदोलनों के प्रति असहिष्णुता पूर्ण रवैये का त्याग करना चाहिए। CMD BSNL ने आश्वस्त किया कि AUAB की चिंताओं का ध्यान रखा जाएगा।

 
[24th Feb 2020]

সিএমডি, বিএসএনএল এবং এইউএবি নেতৃত্বের আলোচনার বিবরণ 

 

আজ ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সিএমডি, বিএসএনএল এর পক্ষ থেকে এইউএবি নেতৃত্বকে আলোচনার জন্য ডাকা হয়। কম পি অভিমন্যু, সাধারণ সম্পাদক, বিএসএনএলইইউ ও আহ্বায়ক, এইউএবি, কম চন্দেশ্বর সিং, সাধারণ সম্পাদক, এনএফটিই ও সভাপতি, এইউএবি, কম কে সেবাস্টিন, সাধারণ সম্পাদক, এসএনইএ, কম শিবকুমার, সাধারণ সম্পাদক, এআইবিএসএনএলইএ, কম বি সি পাঠক, কোষাধক্ষ, এফএনটীও, কম সুরেশ কুমার, সাধারণ সম্পাদক, বিএসএনএল এমএস এবং কম এইচ পি সিং, সাধারণ সম্পাদক, বিএসএনএলওএ এই আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন। শ্রী অরবিন্দ ভাডনার্কর, ডাইরেক্টর (এইচ আর) ও শ্রী এ এম গুপ্তা, জিএম (এস আর) এই আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন। শ্রী পি কে পারওয়ার, সিএমডি, বিএসএনএল ভিআরএস পরবর্তী পরিস্থিতিতে পরিষেবার রক্ষণাবেক্ষণ এর জন্য কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন পদক্ষেপ ও বিএসএনএল এর সম্পত্তিকে আর্থিক রূপান্তরের জন্য যে প্রয়াস চলছে তা বিস্তারিত ভাবে ব্যাখ্যা করেন। তিনি বিএসএনএল কবে থেকে ৪জি পরিষেবা প্রদান শুরু করতে পারে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেন নি। তিনি কর্মরত কর্মচারীদের সমস্যাগুলি যথা সম্ভব নিরসন করার জন্য চেষ্টা চলছে বলে আশ্বস্ত করেন।

এইউএবি নেতৃত্ব এর পক্ষ থেকে বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা চালু করার ক্ষেত্রে অহেতুক বিলম্ব এর জন্য গভীর দুশ্চিন্তা ব্যক্ত করেন। তারা সিএমডি, বিএসএনএল কে নিয়মিত কর্মচারীদের বেতন ও ঠিকা কর্মচারীদের বকেয়া দশ মাসের বেতন এখনও প্রদান না হওয়া, কর্মচারীদের বেতন থেকে কেটে নেওয়া টাকা যা এখনও পর্যন্ত কোঅপারেটিভ, ব্যাঙ্ক ও অন্যান্য সংগঠনের কাছে জমা পড়েনি তা অবিলম্বে প্রদান করার বিষয়ে অনুরোধ জানান। তারা এইউএবি ও বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এর মধ্যে বিএসএনএল এর পরিষেবার মান উন্নতি করতে সমন্বয়ের অভাবের  বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এইউএবি নেতৃত্ব সিএমডি, বিএসএনএল কে আরও বলেন যে ধর্ণা, অনশন ধর্মঘট প্রভৃতি শান্তিপূর্ণ আন্দোলন কর্মসূচির বিরুদ্ধে বিএসএনএল কর্তৃপক্ষের অসহিষ্ণু ব্যবহার ত্যাগ করা উচিত। সিএমডি, বিএসএনএল এইউএবি নেতৃত্বকে তাদের মতামত ভবিষ্যতে মনে রাখা হবে বলে আশ্বস্ত করেন। 

 
[22nd Feb 2020]

প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

 

অল ইউনিয়নস অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েশনস অফ বিএসএনএল (এইউএবি) এর ডাকে আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশ জুড়ে অনশন ধর্মঘট পালন করা হবে। কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট এর অনুমোদিত বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন প্রকল্পের অবিলম্বে প্রতিপালন এর সঙ্গে বিএসএনএল এর কর্মচারীদের বেতন প্রদান সহ অন্যান্য দাবি দাওয়ার নিষ্পত্তি করতে এই অনশন ধর্মঘট ডাকা হয়েছে।

গত ২৩ অক্টোবর, ২০১৯ কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট বিএসএনএল ও এমটিএনএল এর আর্থিক অবস্থা পুনরুদ্ধার এর জন্য ৬৯০০০ কোটি টাকার প্রকল্প ঘোষণা করে। এই প্রকল্পের মধ্যে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান, লং টার্ম বন্ড এর মাধ্যমে ১৫০০০ (বিএসএনএল এর জন্য ৮৫০০ এবং এমটিএনএল এর জন্য ৬৫০০) কোটি টাকা এর ফান্ড গড়ে তোলার জন্য সভেরেইন গ্যারান্টি প্রদান, সম্পদ কে অর্থে রূপান্তর ও ভিআরএস এর প্রয়োগ ছিল।

এতগুলির মধ্যে কেবলমাত্র স্বেচ্ছাবসর প্রকল্প রূপায়িত হয়েছে, যার মধ্যে দিয়ে ৭৮৫৬৯ জন বিএসএনএল কর্মচারীকে বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা হয়েছে। এটি অত্যন্ত দুঃখের বিষয় প্রায় চার মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও বিএসএনএল কে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করা হল না। একইভাবে কেন্দ্রীয় সরকার সভেরেইন গ্যারান্টি প্রদান না করায় বিএসএনএল লং টার্ম বন্ড এর মাধ্যমে ৮৫০০ কোটি টাকার ফান্ড গড়ে তুলতে পারে নি। বিএসএনএল এর সম্পদকে অর্থে পরিণত করার প্রক্রিয়াও শামুকের গতিতে চলছে। মাননীয় সুপ্রিম কোর্টের এজিআর নির্ণয়ের বিষয়ে রায় টেলিকম ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করেছে, যার ফলে ব্যাঙ্কগুলি বিএসএনএল কে প্রয়োজনীয় ঋণ দিতে চাইছে না।

বিএসএনএল কে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করতে বিলম্ব এবং প্রয়োজনীয় ফান্ড এর অপ্রতুলতা থেকে বোঝা যাচ্ছে যে বিএসএনএল এর ৪জি পরিষেবা ২০২০ সালের শেষের আগে শুরু হবে না। এই বিলম্ব বিএসএনএল এর পুনরূজ্জীবন প্রকল্প অনুমোদন এর কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট এর উদ্যোগের বিরোধী। বিএসএনএল এর ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল এর সমস্যার কথা জানিয়ে মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। যদিও কিছুতেই কোন সমাধান হয় নি।

উপরোক্ত অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে, বিএসএনএল এর পক্ষে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা সম্ভব হয় নি এবং এর ফলে প্রবল আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। কর্মচারীরা নির্দিষ্ট দিনে বেতন পাচ্ছেন না এবং ঠিকা কর্মচারীরা বিগত ১০ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। কর্মচারীদের বেতন থেকে কেটে নেওয়া জিপিএফ, ব্যাঙ্ক লোন এর ইএমআই, এলআইসি এর প্রিমিয়াম, সোসাইটির টাকা প্রভৃতি বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এখনও সংশ্লিষ্ট সংস্থায় জমা দেয় নি। এর ফলে কর্মচারীরা জিপিএফ ও সোসাইটির কাছ থেকে ঋণ পাচ্ছেন না।

এই পরিস্থিতিতে, এইউএবি গত ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশ জুড়ে মধ্যাহ্ন বিরতিতে বিক্ষোভ সমাবেশ সংগঠিত করেছিল । এর সঙ্গে ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সারা দেশে অনশন ধর্মঘট কর্পোরেট অফিস, সার্কেল ও জেলা স্তরে সংগঠিত হবে, টেলিযোগাযোগ মন্ত্রক ও বিএসএনএল কর্তৃপক্ষ এর উপরোক্ত বিষয়গুলিতে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে।

      কম চন্দেশ্বর সিং                           কম পি অভিমন্যু

  সভাপতি, এইউএবি                     আহ্বায়ক, এইউএবি

 
You are Visitor Number Hit Counter
Hit Counter
[CHQ] [AP] [Kerala] [Karnataka] [Tamil Nadu] [Calcutta] [West Bengal] [Punjab] [Maharashtra] [Orissa] [MP] [Gujrat] [SNEA] [AIBSNLEA] [TEPU]
[Intranet / BSNL] [DOT] [DPE] [TRAI] [PIB] [CITU ] / AIBDPA