26th Feb 2018: Congratulation all comrades to make March to Sanchar Bhawan a great success,

Implement 3rd PRC with effect from 01.01.2017.

No tower subsidiary company in BSNL. 

 

26th May 2018: Historic Mazdoor Kissan sangharsh rally at New Delhi on 5th September, 2018 ,

Organise and participate massive 

 

Com Prabir Kumar Dutta
( President )

Com. Sisir Kumar Roy
( Secretary )

Com. Debasis Dey
( Treasurer )

 
 
bsnleuctc@yahoo.co.in
 
BSNL Employees Union Calcutta Telephones Circle
 
Site Updated On : 14th Nov 2018
 
[18th Oct 2018]

৩০.১১.২০১৮ এর মধ্যে দাবিগুলি মীমাংসা না হলে স্ট্রাইক সংগঠিত হচ্ছেই - এইউএবি নেতৃত্ব সিএমডি, বিএসএনএল এবং সেক্রেটারি, ডিওটি কে জানিয়ে দিলেন :

 

গতকাল অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল নেতৃত্ব, সেক্রেটারি, ডিওটি ও সিএমডি, বিএসএনএল কে নোটিশ দিয়েছেন তাতে পরিষ্কার করে বলা হয়েছে যে ৩০.১১.২০১৮ এর মধ্যে দাবিগুলি মীমাংসা না হলে বিএসএনএল  এর কর্মচারীরা স্ট্রাইক সংগঠিত করতে বাধ্য হবে।

দাবিগুলি :-

১) ০১.০১.২০১৭ থেকে তৃতীয় বেতন সংশোধন বিএসএনএল এর ক্ষেত্রে চালু  করতে হবে। 

২) ০১.০১.২০১৭ থেকে বিএসএনএল এর পেনশনারদের পেনশন সংশোধন করতে হবে। 

৩) মূল বেতনের উপর ভিত্তি করে পেনশন কনটরিবিউশন প্রদান করার কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ম বিএসএনএল এর ক্ষেত্রে কার্যকর করতে হবে। 

৪) অবিলম্বে বিএসএনএল কে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করতে হবে ।

৫) দ্বিতীয় বেতন সংশোধন কমিটিতে অমীমাংসিত বিষয়গুলি সমাধান করতে হবে। 

সাংবাদিক সম্মেলন, র‌্যালী ও ধর্নার মাধ্যমে সমস্ত কর্মচারীদের জানাতে হবে ৩০শে নভেম্বর এর মধ্যে দাবিগুলি আদায় না হলে স্ট্রাইক সংগঠিত করার জন্য প্রস্তুত হতে হবে । এই ব্যাপারে এইউএবি নেতৃত্ব সমস্ত ডিস্ট্রিক্ট ও সার্কেল নেতৃত্বের সক্রিয় ভূমিকা পালন করার  জন্য আবেদন জানিয়েছে । 

 
[16th Oct 2018]

বিএসএনএল এর আর্থিক অবস্থা - সত্য ও রটনা 

 

বিএসএনএল এর আর্থিক অবস্থা সম্পর্কে সমস্ত কর্মচারীদের বিএসএনএলইইউ জানাতে চায় । এটা সত্যি যে বিএসএনএল বর্তমানে প্রচুর আর্থিক সমস্যার মধ্যে দিয়ে চলছে । কর্মচারীদের বেতন প্রদান করতে প্রতি মাসে অত্যন্ত সমস্যা হচ্ছে। কর্পোরেট অফিস থেকে মেডিক্যাল ও অন্যান্য বিল প্রদানের জন্য ফান্ড পেতে সমস্যা হচ্ছে । জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের বেতন প্রদান করতে প্রতি মাসে অত্যন্ত দেরী হচ্ছে কর্পোরেট অফিস থেকে ফান্ড দেরীতে আসার জন্য । 

কোম্পানির এই অবস্থার সুযোগ নিয়ে কিছু লোক কর্মচারীদের মনে আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করছে । এদের ছড়ানো বিভিন্ন গুজবে বিভ্রান্ত কর্মচারীরা তাদের ভবিষ্যত নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে । তাই আজ বিএসএনএলইইউ এর অন্যতম প্রধান কাজ কর্মচারীদের কাছে বর্তমান অবস্থার সঠিক তথ্য জানান । সেপ্টেম্বর ২০১৬ থেকে রিলায়েন্স জিও ক্রমাগত মোবাইল ফোন এর ট্যারিফ কমানোর জন্য বিএসএনএল এর আর্থিক অবস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ।

কেবলমাত্র বিএসএনএল না,  এয়ারটেল, ভোডাফোন ও আইডিয়াও এর ফলে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে । সত্যি কথা বলতে সমস্ত টেলিকম সেক্টর এর ফলে আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে । যদিও বিএসএনএল এর অবস্থা অন্য প্রাইভেট অপারেটরদের তুলনায় ভালো । প্রত্যেক বেসরকারী কোম্পানি ঋণের ভারে নুয়ে পড়েছে । যেমন এয়ারটেল এর ঋণ ৯৫০০০ কোটি টাকা । ভোডাফোন ও আইডিয়া এর মিলিত ঋণ ১২০০০০ কোটি টাকা। তুলনামূলক ভাবে বিএসএনএল এর ক্ষেত্রে ভালো খবর এই যে ঋণের পরিমাণ মাত্র কয়েক হাজার কোটি টাকা। 

 এছাড়াও রিলায়েন্স জিও এর তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্যে বিএসএনএল এর গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে। ২০১৭ সালে বিএসএনএল এর গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির হার এয়ারটেল, ভোডাফোন ও আইডিয়া এর থেকে বেশি। ২০১৭ সালে বিএসএনএল এর গ্রাহক বৃদ্ধির হার ১১.৫%, সেখানে এয়ারটেল এর ৯.১৩%, ভোডাফোন এর ৩.৮৩% ও আইডিয়া এর ৩.১৪%।

বিএসএনএল এর  ক্ষেত্রে বর্তমানে সমস্যা হচ্ছে রেভিনিউ আদায় অত্যন্ত হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের অভিমত টেলিকম সেক্টরের এই ট্যারিফ কমানোর প্রতিযোগিতা খুব বেশি দিন চলতে পারে না । মার্চ ২০১৯ এর পর থেকে ট্যারিফ বৃদ্ধি পাবে। তাদের মত অনুসারে বিএসএনএল সহ টেলিকম কোম্পানিগুলির রেভিনিউ বৃদ্ধি পাবে। ফলে বিএসএনএল এর আর্থিক সমস্যার ধীরে ধীরে সুরাহা হবে ।

অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল এর ধারাবাহিক আন্দোলন এর ফলে বিএসএনএলকে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করা হবে। ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান করার ছ মাসের মধ্যে বিএসএনএল সারা ভারত জুড়ে সমস্ত সার্কেলে এই পরিষেবা চালু করতে পারবে । অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল ইতিমধ্যেই "বিএসএনএল এট ইওর ডুর স্টেপ" এই আন্দোলনের মাধ্যমে সমস্ত কর্মচারীদের সেলস ও মার্কেটিং এ নিযুক্ত হবার জন্য আবেদন জানিয়েছে। এইউএবি নেতৃত্ব বিএসএনএল কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি করেছেন যে অনাবশ্যক খরচ কমানোর জন্য। তারা আরও বলেন যে বিএসএনএল এর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের  বিলাস বহুল খরচ কমানো এবং কৃচ্ছ সাধন তাদের দিক থেকে শুরু করতে হবে ।  এইউএবি  নেতৃত্ব এই ব্যাপারটা যাতে সঠিকভাবে পালিত হয় সে জন্য আন্দোলন সংগঠিত করবেন।

বিএসএনএল এর আর্থিক সমস্যার সমাধান শীঘ্রই হবে বলে বিএসএনএলইইউ মনে করে। কর্মচারীদের কাছে আবেদন জানানো হচ্ছে যে তারা গুজব ও রটনায় কান দেবেন না। বিএসএনএল এর ভবিষ্যত উজ্জ্বল। এই ভবিষ্যতের দিকে সবাই মিলে এগিয়ে যেতে হবে । নিশ্চিত ভাবে ভবিষ্যত  আমাদেরই হবে। 

 
[14th Oct 2018]

৮ই অক্টোবর অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল এর সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত সমূহ :

 

গত ৮ই অক্টোবর অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল এর সভা আয়োজিত হয়েছিল । এই সভায় বিএসএনএলইইউ, এনএফটিই, এসএনইএ, এআইবিএসএনএলইএ, এআইজিইটিওএ, বিএসএনএল এমএস, এটিএম ও বিএসএনএলওএ এর সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকেরা অংশ গ্রহণ করেন । এই সভায় মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রী এইউএবি নেতৃত্বের সঙ্গে মিটিং এ যে বিষয়গুলি সমাধানের আশ্বাস দিয়েছিলেন তা নিয়ে আলোচনা হয়। এই সভা থেকে নিম্নলিখিত সিদ্ধান্তগুলি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়েছে : -

১) ২৯.১০.২০১৮ তারিখে ডিস্ট্রিক্ট ও সার্কেল গতভাবে প্রেস কনফারেন্স ডাকা হবে যেখানে সরকারের বিএসএনএল বিরোধী ও প্রো-প্রাইভেট পলিসির কথা ব্যখ্যা করতে হবে ।

২) ৩০.১০.২০১৮ তারিখে সমস্ত এরিয়ায় ধর্না সংগঠিত করতে হবে ।

৩) ১৪.১১.২০১৮ তারিখে ডিস্ট্রিক্ট ও সার্কেল গতভাবে র‌্যালী সংগঠিত করতে হবে।

৪) যদি দাবিগুলির আশু সমাধান না  হয় তাহলে আগামী দিনে ব্যাপক আন্দোলন এমনকি ধর্মঘটে কর্মচারীদের সামিল হতে হবে। 

 
[12th Oct 2018]

টেলিফোন ভবনে বিক্ষোভ কর্মসূচি :

 

আজ বেলা ১টায় টেলিফোন ভবনে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হয়েছিল নিম্নলিখিত দাবিগুলিতে :

১) দুর্গা পূজার আগে ফেস্টিপভ্যাল অ্যাডভান্স প্রদান করতে হবে ।

২) মেডিক্যাল বিল প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।

৩) নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের ওয়াশিং অ্যালাওয়েন্স দিতে হবে ।

৪) পিএলআই /বোনাস দিতে হবে ।

৫) ক্যান্টিন গুলিতে হীটারের পুনরায় সংযোগ দিতে হবে ।

৬) দুর্গা পূজার আগে জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের সেপ্টেম্বর মাসের বেতন প্রদান করতে হবে । 

 
[9th Oct 2018]

দুদিনের সাধারণ ধর্মঘট এর সমর্থনে রাজ্য কনভেনশন :

 

আজ মৌলালি যুব কেন্দ্রে কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন, ফেডারেশনস, বিএসএনএল কো-অর্ডিনেশন কমিটি, ১২ জুলাই কমিটি, ব্যাঙ্ক ও অন্যান্য সংগঠনের আহ্বানে দুদিনের ধর্মঘটের সমর্থনে রাজ্য কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয় । কম শিশির রায়, সভাপতি, বিএসএনএল কো-অর্ডিনেশন কমিটি তার বক্তব্যে বিএসএনএল এর কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মচারী বিরোধী নীতির বিরুদ্ধে ধারাবাহিক লড়াই আন্দোলনের কথা বলেন। তিনি আরও বলেন যে বিএসএনএল এর সমস্ত কর্মচারী অল ইউনিয়ন এবং অ্যাসোসিয়েশন অফ বিএসএনএল এর নেতৃত্বে আগামী ৮ ও ৯ই জানুয়ারি দুদিনের সাধারণ ধর্মঘটে এ রাজ্যসহ সারা ভারত জুড়ে সামিল হবেন। 

 
[6th Oct 2018]

চুঁচুড়ায় শাখা সম্মেলন :

 

আজ শ্রীরামপুর এরিয়ার অন্তর্গত চুঁচুড়া শাখার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হল চুঁচুড়া এক্সচেঞ্জে। এই সভায় কম বাবলু মূর্মু, শাখা সম্পাদক সভায় উপস্থিত সদস্যদের সামনে শাখার কার্যবিবরণী ও আয় ব্যায়ের হিসাব আলোচনার জন্য পেশ করেন। কম অরুণ কোঁচ, ডিস্ট্রিক্ট সভাপতি, কম দিলীপ মান্না, শাখা সম্পাদক, কম সঞ্জয় বিহারী রায়, শাখা সম্পাদক, কম দিলীপ দাস, শাখা সম্পাদক, সিটিটিএমইউ সম্মেলনের সাফল্য কামনা করেন । কম শিশির রায় , সার্কেল সম্পাদক তার বক্তব্যে ৪জি স্পেকট্রাম প্রদান, সাবসিডিয়ারি টাওয়ার কোম্পানী গঠন বাতিল, জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের বেতন নিয়মিত প্রদান, এলটিসি বিল, মেডিক্যাল বিল প্রদান, তৃতীয় বেতন সংশোধন এবং পেনশন সংশোধন করা, কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মচারী বিরোধী নীতির কথা এবং এর বিরুদ্ধে আগামী ৮ ও ৯ই জানুয়ারি দুদিনের সাধারণ ধর্মঘট পালন করার কথা বলেন । এই সম্মেলন থেকে আগামী বছর এর জন্যে কমিটি গঠন করা হয়। সভাপতি ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন ।

 
[5th Oct 2018]

জিএম (এইচ আর এন্ড অ্যাডমিন) এর সঙ্গে মিটিং :

 

আজ কম শিশির রায়, সার্কেল সম্পাদক, কম বিশ্বজিৎ শীল, সহকারী সার্কেল, কম বন্দনা ঘোষ, সহকারী কোষাধক্ষ ও কম অরূপ সরকার, শাখা সম্পাদক, সিটিটিএমইউ জিএম (এইচ আর এন্ড অ্যাডমিন) এর সঙ্গে দেখা করেন এবং নিম্নলিখিত বিষয়গুলি আলোচনা করেন ।

১) জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের ভিডিএ প্রদান ।

২ ) জব কন্ট্রাক্ট লেবারদের সেপ্টেম্বর মাসের  বেতন এখনও পর্যন্ত প্রদান করা হয় নি ।

৩) নন-এক্সিকিউটিভ কর্মচারীদের ফেস্টিভ্যাল অ্যাডভান্স প্রদান করা ।

৪) বকেয়া মেডিক্যাল বিল প্রদান।

৫) দ্বিতীয় লিস্টে উত্তীর্ণ জেইদের ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা।

৬) কলকাতা টেলিফোন্স সার্কেল এর  জেই পদের ভ্যাকেন্সী কর্পোরেট অফিসে জানানো যাতে পরবর্তী পরীক্ষা তাড়াতাড়ি  করা যায়।

৭) এনইপিপি এর ফলে যে সমস্ত সিনিয়র টিওএ কর্মচারীদের বেতন ৭১০০ থেকে ৬৫০০ ডাউন গ্রেড হয়েছিল তাদের মোট সংখ্যা কর্পোরেট অফিস পাঠানো।

৮) ক্যান্টিন গুলিতে হীটারের পুনরায় সংযোগ দেওয়া। 

৯) ব্যারাকপুর এরিয়ায় টেন্ডার হওয়া কাজ দ্রুত  শেষ করা।

১০) যে সমস্ত কর্মচারী ট্রান্সফার এর জন্য আবেদন জমা দিয়েছেন তাদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া । 

জিএম (এইচ আর এন্ড অ্যাডমিন ) এই ব্যাপারে  সদর্থক আশ্বাস দিয়েছেন ।

 
You are Visitor Number Hit Counter
Hit Counter
[CHQ] [AP] [Kerala] [Karnataka] [Tamil Nadu] [Calcutta] [West Bengal] [Punjab] [Maharashtra] [Orissa] [MP] [Gujrat] [SNEA] [AIBSNLEA] [TEPU]
[Intranet / BSNL] [DOT] [DPE] [TRAI] [PIB] [CITU ] / AIBDPA